বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



ফেঞ্চুগঞ্জে ২ তরুণের সহযোগিতায় পরিবার খুঁজে পেলেন মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি



বিজ্ঞাপন

আসিফ ইকবাল ইরন, ফেঞ্চুগঞ্জ:
সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় দুই তরুণের আন্তরিক প্রচেষ্টায় পরিবারের খোঁজ পেয়েছেন এক মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তি। সমাজহিতৈষী এই দুই তরুণের নাম জুয়েল আহমদ ও আমিনুল ইসলাম। তাঁরা ফেঞ্চুগঞ্জের উত্তর কুশিয়ারা ইউনিয়নের কোনাপাড়া গ্রামের তমির আলী ও খিলপাড়া গ্রামের চেরাগ আলীর পুত্র।

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, কিছুদিন ধরে ফেঞ্চুগঞ্জের কটালপুর বাজারে একজন মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী ঘোরাফেরা করছিল। গত ১ সেপ্টেম্বর লোকটি হঠাৎ মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি জুয়েল আহমদ ও আমিনুল ইসলামের দৃষ্টিগোচর হয়। তাৎক্ষণিক ভাবে তাঁরা উদ্যোগ নিয়ে বাজারের ব্যবসায়ীদের সহায়তায় লোকটিকে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করান। এখানে দু’দিন চিকিৎসার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ওই দুই তরুণ স্থানীয় থানাকে অবগত করে রোগীকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে লোকটির সেবা শুশ্রূষা, ঔষুধ, পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ প্রয়োজনীয় আর্থিক ব্যয়ভার বহন করেন এই দুই তরুণ। চিকিৎসা সহায়তার পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি পোস্ট করে পরিবারের খোঁজ করতে থাকেন।

অবশেষে গতকাল ফেসবুকে ছবি দেখে মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির স্ত্রী-সন্তান ছুটে আসেন হাসপাতালে। এ সময় তাঁরা জানান, এই ব্যক্তির নাম নানু মিয়া, বাড়ি গোলাপগঞ্জ উপজেলার আমকোনা গ্রামে। তিনি কয়েক বছর ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন। গত তিনমাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন। সব পরিচয়ের সত্যতা নিশ্চিত হবার পর জুয়েল ও আমিনুল তাকে তুলে দেন পরিবারের হাতে।

এ ব্যাপারে আমিনুল বলেন, আমরা আমাদের সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকেই কাজটা করেছি। আমরা একজন অসুস্থ মানুষকে দেখে দূরে সরে থাকতে পারি না। অনেকে লোকটিকে হাসপাতালে রেখে আসার জন্য বললেও আমরা মানবিকতার তাগিদে তা করিনি। লোকটি মানসিক ভারসাম্যহীনতার সাথে এক হাত ও পা প্যারালাইজড ছিল। আমরা লোকটিকে চিকিৎসা শেষে তাঁর পরিবারের হাতে তুলে দিতে পেরে আল্লাহ কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।