শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



বড়লেখায় প্রবাসীর স্ত্রীর টাকা নিয় পালানোর সময় চালক আটক, অতঃপর…
নিজস্ব প্রতিবেদক

নিজস্ব প্রতিবেদক



বিজ্ঞাপন

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় প্রবাসীর স্ত্রীর টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ এক চালককে আটক করেছেন স্থানীয় জনতা। এসময় হাতিয়ে নেওয়া টাকা উদ্ধার করে অটোরিকশাসহ তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

আটককৃত চালকের নাম আবুল হোসেন মো. জুনেদ। আবুল বিয়ানীবাজার উপজেলার পাতন গ্রামের মৃত কনাই মিয়ার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দাসেরবাজার এলাকার দুবাই প্রবাসী হারিছ আলীর স্ত্রী রাবু বেগম বৃহস্পতিবার বিকেলে কৃষিব্যাংক বড়লেখা শাখা থেকে স্বামীর ব্যাংক হিসাব থেকে ২১ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। ব্যাগে টাকা ভরে তিনি ব্যাংক থেকে নামতেই এক অটোরিকশা চালক তাকে ডাক দেয়। দাসেরবাজার যাওয়ার কথা বললে তের বছরের মেয়েসহ ওই নারী অটোরিকশায় উঠেন। পৌরশহরের উত্তর চৌমুহনায় পৌঁছার পর কিছু কেনাকাটার জন্য টাকার ব্যাগসহ মেয়েকে অটোরিকশাতে বসিয়ে রাবু বেগম নেমে পড়েন। এসময় সিএনজি চালক সুকৌশলে রাবু বেগমের মেয়ের দৃষ্টি অন্য দিকে ফিরিয়ে ব্যাগ খুলে টাকা পকেটে ভরে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায়। তখন মেয়েটির চিৎকারে উত্তর চৌমুহনী জামে মসজিদের সামনে স্থানীয় জনতা ব্যরিকেড দিয়ে অটোরিকশাসহ চালক আবুল হোসেন মো. জুনেদকে আটক করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় ব্যবসায়ী আব্দুল আজিজ জানান, মেয়েরটির চিৎকার শুনে পথচারীসহ ব্যবসায়ীরা রাস্তায় ব্যরিকেড দিয়ে তাকে আটক করেন। এসময় তার পকেট থেকে ১৯ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছলে উদ্ধারকৃত টাকা ও অটোরিকশাসহ তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

রাবু বেগম জানান, ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনের পূর্ব থেকেই সে আমাকে অনুসরণ করেছিল। কিন্তু আমি তা বুঝতে পারিনি। আমার মেয়েকে সিএনজিতে রেখে যাওয়ার সুযোগে সে টাকা হাতিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। লোকজন এগিয়ে এসে তাকে আটক করেন। পুলিশ এ টাকা আমাকে ফেরত দিয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়াছিনুল হক  জানান, উদ্ধারকৃত টাকা ভুক্তভোগী মহিলাকে ফেরত দেওয়া হয়েছে। আটক সিএনজি চালককে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।