শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



জুমার খুতবা: ভূমিকম্প ও লন্ডনের পাতাল রেল
তাইসির মাহমুদ

তাইসির মাহমুদ



বিজ্ঞাপন

জুমার নামাজ পড়লাম ডকল্যান্ডের একটি মসজিদে। খতিব ও ইমাম ছিলেন শায়খ আব্দুর রাহমান মাদানী। খুতবায় মৃত্যু নিয়ে কথা বলছিলেন। বলছিলেন, মৃত্যুর জন্য সবসময় প্রস্তুত থাকতে। কারণ আমরা জানিনা মৃত্যুদূত আমাদের সম্মুখে কখন এসে হাজির হবেন।

সম্প্রতি ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্প ও সুনামির প্রসঙ্গ টেনে বলছিলেন, হঠাৎ ভূমিকস্প এলে আমরা কোথায় লুকাবো। যে অবস্থাতেই থাকিনা কেন, মৃত্যু তো অপরিহার্য।
এরপর তিনি আরো একটি ভয়ংকর তথ্য দিলেন। বিষয়টি এভাবে আগে কখনও ভাবিনি । কারণ গত দেড় দশকে লন্ডনে কখনও ভূমিকম্প হতে দেখিনি । যখন বহির্বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভুমিকম্পের ক্ষয়ক্ষতি দেখি তখন ভয় হয়।

খতিব বললেন- একটিবার ভাবুন, বৃটেনে যদি হঠাৎ ভূমিকম্প শুরু হয় তাহলে একই সাথে কত লক্ষ মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়বে। অসংখ্য, অগণিত । কারণ বৃটেনের আন্ডারগ্রাউন্ড ট্রেনে (পাতাল রেল) প্রতিদিন কয়েক লক্ষ মানুষ চলাফেরা করে থাকেন । যদি হঠাৎ ভূমিকম্প হয় তাহলে নিচের সুড়ঙ্গ পথগুলো ধ্বসে পড়ে মিলিয়ন মানুষ চাপা পড়বে। আন্ডারগ্রাউন্ডেই তাদের কবর হয়ে যাবে। পাতাল রেলের মুখ যদি মাটি ধ্বসে বন্ধ হয়ে যায় তাহলে কি কেউ বেরিয়ে আসতে পারবে?

তাঁর কথা শুনে গা শিউরে উঠছিলো। প্রায়শই তো পাতাল রেলে চলাচল করি। হঠাৎ যদি ভুমিকস্প হয় তাহলে পাতালেই তো কবর হবে। আর ফিরে আসা হবে না।

তাহলে মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকাটাই অপরিহার্য। পাতাল ট্রেনে থাকি আর আকাশে বিমানে থাকি, মৃত্যু ঘোষণা দিয়ে আসবে না। যে কোনো সময়ই মৃত্যু আসতে পারে । তাই মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হওয়া চাই। আজই, এখনই।

ফেসবুক থেকে নেওয়া