বুধবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



বড়লেখায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি
নিজস্ব প্রতিবেদক

নিজস্ব প্রতিবেদক



বিজ্ঞাপন

মৌলভীবাজারের বড়লেখা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান আহমদকে জড়িয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি আইডি থেকে মিথ্যা অপপ্রচার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় যুবলীগ নেতা নোমান শনিবার রাতে বড়লেখা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নম্বর-৭২৯) করেছেন।

জিডি সূত্রে জানা গেছে, ১৫ সেপ্টেম্বর শনিবার সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটের দিকে Ashuk Ahmed নামের অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি বড়লেখা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান আহমদকে জড়িয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোস্ট দেয়।

এতে লেখা রয়েছে-

‘সিলেটের বিশ্বনাথ থানার মোটরসাইকেল চুর মৌলভীবাজার বড়লেখা থানায় হাতেনাতে ধরা পড়ার পর বড়লেখা থানার গুলশা গ্রামের শংকর পুরকায়েন্ত নামের মোটরসাইকেল চুরের গডফাদার সিলেট শাহপরান থানায় গ্রেফতার নাম আসছে বড়লেখা পৌর যুবলীগের নেতা নোমান আহমদের তাহলে আজ বড়লেখাবাসি কার উপরে বিশ্বাস রাখবে।’ 

ওই পোস্টে অনেকে বাজে ধরনের মন্তব্য করেছেন। এছাড়া ওই আইডি থেকে ভবিষ্যতে তাঁর নামে আরও বাজে ধরনের পোস্ট করা হতে পারে বলেও যুবলীগ নেতা নোমান আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ১৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে সিলেটের আন্তঃজেলা মোটরসাইকেল চোর চক্রের সক্রিয় ৫ সদস্যকে আটক করে শাহপরান থানা-পুলিশ। এর মধ্যে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার আটগ্রামের বর্তমানে পশ্চিম কাজলশাহ সোনার বাংলা ৯৬ নং বাসার কালা মিয়ার ছেলে রুমান (২৭) নামে এক মোটরসাইকেল চোরকে আটক করা হয়। অথচ ফেসবুকে Ashuk Ahmed নামের অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তি মৌলভীবাজারের বড়লেখা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান আহমদের নাম উল্লেখ করে পোস্টটি দেন।

এ বিষয়ে বড়লেখা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান আহমদ শনিবার রাতে বলেন, ‘কোনো একটি চক্র আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করার হীন উদ্দেশ্যে ফেসবুকে আইডি দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার করাচ্ছে। বিষয়টি দুঃখজনক। আমি থানায় জিডি করেছি। প্রকৃত ঘটনাটি উদ্ঘাটনের জন্য পুলিশের প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।’

বড়লেখা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ দাস তালুকদার জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় বলেন, ‘প্রযুক্তির সাহায্যে ওই আইডি ব্যবহারকারীকে শনাক্তের চেষ্টা চলছে।’