রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



                    চাইলে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন

বড়লেখায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন মামলার বাদি



বিজ্ঞাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক:: মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে প্রতিপক্ষের লোকজনকে ফাঁসাতে আদালতে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে মামলা করেছিলেন এক ব্যক্তি। কিন্তু আদালতে দীর্ঘ সাক্ষ্য-প্রমাণে পূর্ব শত্রুতার জেরে হয়রানির উদ্দেশ্যে মামলাটি করা হয় মর্মে প্রমাণ পাওয়ায় মামলার বাদি কবির আহমদ এখন উল্টো নিজেই ফেঁসে গেলেন।

মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) মামলার রায়ে আদালত কবির আহমদকে ৩ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন। একইসঙ্গে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড ও অনাদায়ে আরো ৩ মাসের কারাদণ্ডের রায় দেওয়া হয়েছে। বড়লেখা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ জিয়াউল হক এ রায় দেন।

অভিযুক্ত কবির আহমদ উপজেলার সায়পুর গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত কবির আহমদের ভাই তানভীর রানা ফয়েজসহ তারা ১১ বন্ধু ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর চারটি মোটরসাইকেল চড়ে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে দাওয়াত খেতে যান। ফেরার পথে বেপরোয়া গতির কারণে তানভীর রানা ফয়েজসহ তিনজন থাকা মোটরসাইকেলটি দুর্ঘটনায় পতিত হয়। দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার ঘটনাকে হত্যা চেষ্টার ঘটনা সাজিয়ে কবির আহমদ প্রতিপক্ষের জুয়েল আহমদসহ তার স্বজনদের বিরুদ্ধে আদালতে পিটিশন (এনজিআর-২৯/১৯) মামলা করেন। পুলিশের তদন্তে ঘটনা মিথ্যা প্রমাণিত হয়। মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) বড়লেখা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত স্বাক্ষ্যপ্রমাণে ঘটনাটি হয়রানির উদ্দেশ্যে সাজানো ও মিথ্যা মামলা বলে প্রমাণ পান। পরে বিচারক বাদি কবির আহমদের বিরুদ্ধে সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের রায় ঘোষণা করেন।

আদালতের বেঞ্চ সহকারি ইকরাম হোসেন মিথ্যা মামলা দায়েরের অপরাধে একটি মামলার বাদীর বিরুদ্ধে সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের রায় ঘোষিত হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেন।