রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



                    চাইলে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন

শায়েস্তাগঞ্জে আ’লীগ-বিএনপির বাগড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীরা



বিজ্ঞাপন

নিউজ ডেস্ক: আগামী ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার পৌর নির্বাচন। সেই হিসেবে নির্বাচনের আর বাকি ১১ দিন।

নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে প্রধান দুই দলের প্রার্থীদের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রচারণায় নির্বাচনী উত্তাপ বিরাজ করছে ভোটারদের মাঝে। প্রার্থীদের পোস্টার, লিফলেট, ব্যানার দিয়ে শহরের হাটবাজার যেন সেজে রয়েছে। নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে প্রার্থীদের নানামুখী প্রচারণার পর্যবেক্ষণ ও হিসাব মেলাচ্ছেন ভোটাররা । এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ার কারণে প্রধান দুই দলের প্রার্থীদের মধ্যে সাপে-নেউলে যুদ্ধ হলেও এবার বাগড়া বাধছে স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা এ দুই দলের সাথে টেক্কা দিয়ে বাজপাখির মত ছোঁ মেরে নিতে চাইছে মূল্যবান মেয়রের পদটি ।


এবার নির্বাচনে নিজ নিজ দলের সমর্থন কে পাবে, আর কতটুকুই বা ধরে রাখতে পারবে নেতাকর্মীরা ও ভোটাররাই বা শেষ পর্যন্ত কতটুকু সমর্থন দিবে – এ নিয়ে এলাকায় বইছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ।

এদিকে ঠান্ডা মাথায় নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরাও।

যে যেভাবে পারেন নানা কৌশলে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মাসুদউজ্জামান মাসুক ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রচারণায়।

বিএনপির প্রার্থীসহ অন্য প্রার্থীরাও চষে বেড়াচ্ছেন পৌর এলাকায়।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপির মেয়র প্রার্থীসহ ছয় জন মেয়র ও ৩৫ জন কাউন্সিলর ও ১৪ জন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী ভোটযুদ্ধে অংশগ্রহণ করছেন।

মেয়র প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মাসুদউজ্জামান মাসুক (নৌকা), বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ফরিদ আহমেদ অলি (ধানের শীষ), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. ছালেক মিয়া (নারিকেল গাছ), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফজল উদ্দিন তালুকদার (চামচ), আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম শিবলু (জগ) ওস্বতন্ত্র প্রার্থী ইমদাদুল ইসলাম শীতল (মোবাইল ফোন)।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাসুদউজ্জামান মাসুক বলেন, ক্ষমতায় এখন আওয়ামী লীগ তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মানুষ নৌকা মার্কাতেই ভোট দিবে আশা করছি।

বিএনপি প্রার্থী ফরিদ আহমেদ অলি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ধানের শীষের জয় নিশ্চিত।

বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. ছালেক বলেন, আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চিত। গত পাঁচ বছরে আমি পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছি।


বিদ্রোহী প্রার্থী ফজল উদ্দিন তালুকদার বলেন, জনগণের চাপে নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। মানুষ আমাকে ভালোবাসে। আমিই জয়ী হবো।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম শিবলু বলেন, আমি মানুষের ভালোবাসা পাচ্ছি। আমার বিশ্বাস আমি নির্বাচনে জিতবো।

তরুণ প্রার্থী ইমদাদুল ইসলাম শীতল বলেন, আমি দেশের সর্বকনিষ্ঠ প্রার্থী। বয়সে তরুণ হওয়ায় তরুনদের ভোট আমার সাথেই থাকবে।

পৌরসভায় মোট ভোটার ১৭ হাজার ৯৬১। এর মাঝে পুরুষ আট হাজার ৮৩৫ জন এবং নারী ভোটার ৯ হাজার ১২৬ জন।