সোমবার, ২৩ মে ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



জগন্নাথপুরে বাঁধ উপচে পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে দুই হাওরের ফসল



বিজ্ঞাপন

লাতু ডেস্ক:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার একটি ফসল রক্ষা বাঁধ উপচে নদীর পানি হাওরে ঢুকে পড়ায় দুটি হাওরের বোরো ধান তলিয়ে গেছে। গত দুই দিনে হাওর দুটি তলিয়ে যায়। কৃষকেরা আপ্রাণ চেষ্টা করেও হাওর দুটির ফসল রক্ষা করতে পারেননি। কৃষি বিভাগ দুটি হাওরের ফসল তলিয়ে যাওয়ার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

কৃষকেরা বলছেন, ৮০০ একর জমির ফসল তলিয়ে গেছে। তবে কৃষি বিভাগ বলছে, ১০০ একর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কৃষক ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের রমাপতিপুর পশ্চিমের গলাকাটা হাওরে ইটাখোলা নদীর পানি উপচে গত রোববার বিকেলে পানি ঢুকে পড়ে।

গত দুই দিনে এ হাওরের ৩০০ একর জমির ফসল তলিয়ে যায়। মঙ্গলবার সকাল থেকে ওই হাওরের পানি রমাপতিপুরের পূর্বে শেওড়ার বন হাওরে পানি ঢুকতে শুরু করে। মঙ্গলবার রাত ও বুধবার সকালের বৃষ্টিতে এ হাওরের সব ধান তলিয়ে যায়।

রমাপতিপুর গ্রামের কৃষক আলাউদ্দিন বলেন, রমাপতিপুর গলাকাটা হাওরে তিনি যে বোরো আবাদ করেছিলেন, পাকার আগেই পানিতে সব তলিয়ে গেল। আবদুল হাদী নামের রমাপতিপুর গ্রামের আরেক কৃষক বলেন, ‘সব ফসল তলিয়ে গেল। সামনে অন্ধকার দেখছি।’

রমাপতিপুর গ্রামের বাসিন্দা ও পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সাহান আহমেদ বলেন, গত কয়েক দিনের পাহাড়ি ঢলে ইটাখলা নদীর পানি বাঁধ উপচে দুটি হাওরে ঢুকে পড়ে। এতে ৮০০ একর জমির ধান তলিয়ে যায়।

তিনি বলেন, রমাপতিপুর হাওরে ৩০০ একর ও শেওড়ার বন হাওরে ৫০০ একর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়। দুটি হাওরের ধান কাঁচা থাকায় কৃষকেরা কাটতে পারেননি।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা তপন চন্দ্র শীল বলেন, দুটি হাওরে পানি ঢুকে ফসলহানির ঘটনা ঘটেছে। এ দুটি হাওরে ১০০ একর জমি আছে।