সোমবার, ২৩ মে ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



সিলেটে কমানো হলো পানির দাম



বিজ্ঞাপন

ডেস্ক নিউজ :: সিলেটে কমানো হলো পানির দাম। নগরবাসীর আন্দোলনের মুখে সিটি করপোরেশনের মাসিক সভায় সিদ্ধান্ত নিয়ে পানির মূল্য কমিয়েছে। গত বুধবার (১২ জানুয়ারি) বিকেলে বিকালে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সংবাদ সম্মেলন করে এই মূল্য কমানোর কথা জানিয়েছেন।

এ সময় মেয়র বলেন, নগরবাসীর দাবি বিবেচনা করে নগর কর্তৃপক্ষ নতুন মূল্য নির্ধারণ করেছে। তিনি বলেন, পানিতে সিটি করপোরেশনের ভর্তুকি দিন দিন বাড়ছে। ভর্তুকি কমানো ও নিরবচ্ছিন্ন সেবা প্রদানের জন্য নগর কর্তৃপক্ষ সব সময় সোচ্চার রয়েছে। তিনি আরও বলেন, যারা অবৈধভাবে পানির সংযোগ নিয়েছেন তারা আগামী ৩০শে জানুয়ারির মধ্যে প্রয়োজনীয় অনুমোদন করিয়ে নিতে পারবেন। অন্যথায় সিসিকের অভিযানে অবৈধ সকল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে।

মেয়র জানান, ধর্মীয় উপাসনালয় যেমন, মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডার পানির বিল মওকুফ করা হয়েছে। তিনি জানান, আগামীতে পানির বিলের জন্য ডিজিটাল মিটার স্থাপন করবে সিসিক। তিন ক্যাটাগরিতে ৪ স্তরের ডায়ামিটারে ১শ’ থেকে ৫শ’ টাকা পর্যন্ত কমানো হয়েছে পানির বিল।

সিসিকের নতুন বিলের হার হচ্ছে- আবাসিক সংযোগে প্রতি মাসে আধা ইঞ্চি ডায়ামিটারের (ব্যাস) লাইনে বিল ৩০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিলো ৫০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বিল ৬০০ টাকা (ছিল ৮০০ টাকা) এবং এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১ হাজার ২শ’ টাকা (ছিল ১ হাজার ৫শ’ টাকা টাকা)। বাণিজ্যিক সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিলো ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বাণিজ্যিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ২ হাজার টাকা (ছিল ২ হাজার ২০০ টাকা)। প্রাতিষ্ঠানিক সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিলো ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে বাণিজ্যিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ২ হাজার ৫শ’টাকা (ছিল ৩ হাজার টাকা)। এ ছাড়া সরকারি সংযোগে আধা ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে মাসিক বিল ৭০০ টাকা (বাড়িয়ে করা হয়েছিলো ৮০০ টাকা), পৌনে এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনে ১১০০ টাকা (ছিল ১২০০ টাকা) ও এক ইঞ্চি ব্যাসের লাইনের ক্ষেত্রে মাসিক বিল ১ হাজার ২০০ টাকা (ছিল ১ হাজার ৫০০ টাকা)।

সিসিক মেয়র বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বাসস্থানের পানির বিল আগে থেকেই মওকুফ করা আছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিটি কাউন্সিলর আজম খান, কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিম, কাউন্সিলর আফতাব হোসেন খান, কাউন্সিলর আব্দুল মুহিত জাবেদ, কাউন্সিলর এসএম শওকত আমীন তৌহিদ, সংরক্ষিত কাউন্সিলর শাহানা বেগম শানু প্রমুখ।