বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ



বড়লেখায় পরিবেশ রক্ষায় ১০ কিলোমিটার ম্যারাথন দৌড়



বিজ্ঞাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ‘রক্ষা করি পরিবেশ, গড়ি সোনার বাংলাদেশ’ এই স্লোগানকে ধারণ করে মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ১০ কিলোমিটার ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (৫ নভেম্বর) ভোরে শুরু হওয়া দৌড়ে অংশ নেন ১৯৭ জন প্রতিযোগী। পরিবেশ রক্ষায় সচেতনতার পাশাপাশি দেশের অন্যতম বড় জলপ্রপাত মাধবকুণ্ড ও আশপাশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে দেশের মানুষের কাছে উপস্থাপন করতে সিলেট রানার্স সোসাইটির আয়োজনে এবং বড়লেখা ওয়ারিয়র্সের ব্যবস্থাপনায় এই প্রতিযোগিতা হয়। এতে সার্বিক সহযোগিতায় ছিল বড়লেখা উপজেলা প্রশাসন ও দূর্বার মুক্ত স্কাউট বড়লেখা।

আয়োজকদের সূত্রে জানা গেছে, বড়লেখা থানা এলাকা থেকে ভোর সাড়ে ছয়টায় ১০ কিলোমিটারের ম্যারাথন দৌড় শুরু হয়। মাধবকুণ্ড ইকোপার্ক এলাকায় গিয়ে এ দৌড় শেষ হয়। দৌড় শেষ করার জন্য প্রতিযোগীদের বরাদ্দকৃত সময় ছিল ১০০ মিনিট। প্রতিযোগীতায় বড়লেখাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার শিক্ষার্থী ও পেশাজীবীরা অংশ নেন। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ১২ থেকে ৭৩ বছর বয়সীরাও ছিলেন। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন বিচারক ছিলেন উপজেলার কাঠালতলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লুৎফুর রহমান চুন্নু, কলাজুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছয়ফুল হক, ইটাউরি হাজী ইউনুছ মিয়া মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ময়নুল ইসলাম।

ম্যারাথনে অংশ নিয়ে পুরুষ পর্যায়ে প্রথম হন খুলনার আসিফ বিশ্বাস এবং নারী পর্যায়ে প্রথম হন মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার মুভি সূত্রদর। পুরুষ পর্যায়ে ৩ জন ও নারী পার্যায়ে ৩ জনসহ মোট ৬ জনকে নগদ অর্থ, মেডেল ও সম্মাননা সনদ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অংশগ্রহণকারী সবাইকে মেডেল ও সম্মাননা সনদ দেওয়া হয়।

দৌড় শেষে সকাল সাড়ে ৮টায় মাধবকুণ্ড জেলা পরিষদ বাংলো প্রাঙ্গণে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন সিলেট রানার্স সোসাইটির এডমিন আতিকুর রহমান লিপু। বড়লেখা ওয়ারিয়র্সের সভাপতি মো. ফরহাদ হোসেনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. তাজ উদ্দিন, সোয়ান গ্রæপের চেয়ারম্যান খাবের উদ্দিন খান, বড়লেখা উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ প্রমুখ।

আলাপকালে বড়লেখা ওয়ারিয়র্সের সভাপতি মো. ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘মূলত পরিবেশ রক্ষায় মানুষকে সচেতন করা এবং বড়লেখার মাধবকুÐ জলপ্রপাত, চা বাগান ও আশপাশের এলাকার প্রকৃতিকে দেশের মানুষের কাছে উপস্থাপন করার জন্যই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি। আমাদের এ ধরণের আয়োজন অব্যাহত থাকবে।’

বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী বলেন, ‘সুস্বাস্থ্য গড়ে তোলার জন্য এবং স্বাস্থ্য সচেতনতার জন্য দৌড়ের কোনো বিকল্প নাই। এই ম্যারাথন আয়োজন মানুষকে নিয়মিত দৌড়ে উৎসাহিত করবে। বড়লেখায় প্রথমবারের মতো এই ধরণের ম্যারাথন আয়োজন করায় সংশ্লিষ্টদের আমরা স্বাগত জানিয়েছি। বড়লেখার মাধবকুÐ কেন্দ্রীক আয়োজন করাতে এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বিষয়টি মানুষের কাছে আরও ইতিবাচকভাবে উপপস্থাপন হবে। আমরা আগামীতে হাকালুকির রাস্তাটা সংস্কার করে সেখানে ২১.১ কিলোমিটারের ম্যারাথন আয়োজন করব। ফলে বড়লেখার দুটো গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্পট মানুষের কাছে আরও উপস্থাপন হবে।’