শনিবার, ৮ মে ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ



সৌদি আরবে তিন ধাপে লকডাউন শিথিল, বন্ধ থাকছে ওমরাহ হজ
নিউজ ডেস্ক

নিউজ ডেস্ক



বিজ্ঞাপন

সৌদি আরব করোনাভাইরাসের কারণে চলমান কারফিউ, লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছে। যা ধাপে ধাপে পুরো সৌদি আরবজুড়ে কার্যকর হবে। অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম পুনরায় চালু করতেই দেশটির এমন উদ্যোগ।


মঙ্গলবার ভোরে সৌদি প্রেস এজেন্সি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে দেশটির ইংরেজি দৈনিক সৌদি গেজেট সংবাদ প্রকাশ করে যে, এই পদক্ষেপের ফলে অভ্যন্তরীণ বিমান পুনরায় চালু, মসজিদ, রেস্তোরাঁ ও ক্যাফে খোলা এবং সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত চালু করা যাবে, তবে ওমরাহ হজের ওপর অস্থায়ী স্থগিতাদেশ কার্যকর থাকবে।

সেখানে বলা হয়, প্রথম ধাপে অর্থাৎ ২৮ মে থেকে ৩০ মে-এর মাঝে সকাল ৬টা হতে বিকাল ৩টা পর্যন্ত মক্কা শরীফ ছাড়া দেশটির আর সব প্রদেশে কারফিউ শিথিল থাকবে। এ সময়ের মাঝে ব্যক্তিগত গাড়ি দিয়ে এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে যাওয়া যাবে। আগামী ২৮ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত এ নিয়ম চলমান থাকবে।

অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম যথারীতি চালু হবে, খুচরা ও পাইকারি দোকান এবং শপিংমলগুলো পুনরায় খোলা রাখা যাবে। তবে সেলুন, বিউটি পার্লার, স্পোর্টস ক্লাব, স্বাস্থ্য ক্লাব, বিনোদন কেন্দ্র এবং সিনেমাগুলো সামাজিক দূরত্বের উদ্বেগের জন্য বন্ধ থাকবে।

দ্বিতীয় ধাপে অর্থাৎ ৩১ মে থেকে ২০ জুনের মধ্যে মক্কা শরীফ ছাড়া সৌদি আরবের সমগ্র অঞ্চলে ভোর ৬টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সকল সৌদি-নাগরিক ও প্রবাসীগণ চলাচল করতে পারবে। এই ধাপে মক্কা নগরী ছাড়া সৌদি আরবের অন্য সকল প্রদেশের মসজিদসমূহে জুমার নামাজসহ অন্য সব নামাজ চালু হবে।


চূড়ান্ত সতর্কতা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সকল সরকারি ও বেসরকারি অফিস এই ধাপে চালু হতে যাচ্ছে। তবে কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের এখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এই ধাপে চালু হবে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচল। তবে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ থাকবে।

সকল ধরনের রেস্টুরেন্ট ও ক্যাফে চালু হয়ে যাবে। তবে সামজিক অনুষ্ঠান যেমন : বিবাহ অনুষ্ঠান ও জানাজার নামাজে ৫০ জনের বেশি মানুষ উপস্থিত থাকতে পারবে না।

অবশ্য আগের মতোই বিউটি ও সাধারণ সেলুন, স্পোর্টস ও হেলথ ক্লাব এবং সকল ধরনের বিনোদন কেন্দ্র ও মুভি এবং সিনেপ্লেক্স বন্ধ থাকবে।

তৃতীয় ধাপ অর্থাৎ ২১ জুন পরবর্তীকালে সকল ধরনের লকডাউন এবং বিধিনিষেধ উঠিয়ে নেয়া হবে। স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে মানুষের জীবন, যেভাবে করোনা-পূর্ববর্তী সময়ে ছিল।