বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ



মৌলভীবাজার হাসপাতালের দালালের ‘ট্রলি সেবায়’ রোগীর গুনতে হয় টাকা



বিজ্ঞাপন

সাইফুল্লাহ হাসান :: হাসপাতালের গেটে দাঁড়িয়ে কেউ মোবাইল টিপছেন। কেউ আড্ডা দিচ্ছেন। কেউবা আবার চা, পান, সিগারেট খাচ্ছেন। কোনো রোগী আসলেই ট্রলি নিয়ে হাজির হচ্ছেন তারা। রোগী কাউন্টারে রিসিট কাটার পর ট্রলি ঠেলে নির্দিষ্ট রুমে নিয়ে যান তারা। পরে রোগীর স্বজনের কাছে টাকা দাবি করেন। এরা হাসপাতালের কেউ নন।


সম্প্রতি মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতাল ঘুরে এমনই চিত্র দেখা গেছে। এই দালালদের হাসপাতালের অলিগলি চেনা। আর অচেনা-অজানা রোগীদের ‘সেবা’ দিয়ে কিছুটা আয় করেন তারা। এদের দৌরাত্ম্য হাসপাতালজুড়ে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, জরুরি বিভাগ থেকে নির্ধারিত বিভাগে রোগীর ট্রলি ঠেলে নিয়ে যাওয়ার জন্য তাদের দিতে হয় ১০০ থেকে ২০০ টাকা।

কুলাউড়া উপজেলার হলিছড়া গ্রাম থেকে সকালে হাসপাতালে পৌঁছেছেন অঞ্জলী। তিনি তার ভাতিজার বউকে গাইনী বিভাগে ডাক্তার দেখাতে এনেছেন। অঞ্জলি জানান, তাদের সঙ্গে কোনো পুরুষ লোক নেই। হাসপাতালে ঢুকতেই দুইজন লোক আসে। রোগী নেওয়ার জন্য একটা ট্রলি ছিলো তাদের কাছে। তারা রোগীকে ট্রলিতে তোলেন। এরপর একবার ২ তলায়, একবার ৩ তলায়, আবার পুরনো বিল্ডিং থেকে নতুন বিল্ডিংয়ে ট্রলি ঠেলে নিয়ে যান তারা। পরে নতুন বিল্ডিংয়ে এসে গাইনী বিভাগের সামনে ট্রলি দাঁড় করান। এরপর কিছু টাকা দাবি করেন। বললাম, ‘আমরাতো অনেক দূর থেকে এসেছি, টাকা পাবো কই। আমরা গরিব মানুষ। পরে কিছু টাকা দিয়ে বিদায় করেছি।’

রাজনগর উপজেলার মেদিনিমহল এলাকা থেকে নাবিলকে হাসপাতালে নিয়ে এসেছেন তার মা। নাবিলের মা বলেন, ‘হাসপাতালে আসতেই দুইজন এসে নাবিলকে ট্রলিতে তোলেন। পরে ৩য় তলায় নির্দিষ্ট রুমে নিয়ে যান। পরে তারা টাকা দাবি করেন। ১০০ টাকা দিয়ে তাদের বিদায় করেছি। প্রথমে আমি ভেবেছি এরা হাসপাতালের লোক।’


এই দালালদের বিরুদ্ধে শুধু ‘সেবা’ দিয়ে ‘বখশিশ’ নেওয়া নয়, গুরুতর অভিযোগ রোগী ভাগানোর। হাসপাতালের একজন চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কিছু দালাল উন্নত চিকিৎসার কথা বলে রোগীদের আশপাশের বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে নিয়ে যান। আর আয়া বা ওয়ার্ডবয়রা হাসপাতালের যন্ত্রপাতি খারাপ বলে রোগীদের বাইরের ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে নিয়ে যান।

তিনি বলেন, আয়া বা ওয়ার্ডবয়দের সঙ্গে চুক্তি করা থাকে, হাসপাতাল থেকে রোগীকে তাদের ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে নিয়ে আসলে বিলের একটা তাকে দেওয়া হবে।

তার বক্তব্যের সত্যতার প্রমাণ পেতে এই প্রতিবেদক নিজের পরিচয় গোপন করে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের সামনে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অবস্থান করেন।

এ সময় দেখা যায়, কিছুক্ষণ পর পর জলপাই রঙয়ের অ্যাপ্রোন পরা নারীরা (হাসপাতালের আয়া) রোগীদের নিয়ে হাসপাতালের পাশের ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে যাচ্ছেন। এই কাজটা তারা খুব তাড়াতাড়ি এবং সতর্কতার সঙ্গে সেরে ফেলেন। ওই ডায়াগনেস্টিক সেন্টারের রিসিপশনিস্টদের হাতে রোগী দিয়ে দ্রুত হাসপাতালে ফিরে আসেন। এই দৃশ্য গোপনে ভিডিও করার বিষয়টি তারা টের পেয়ে যান। এরপর অবশ্য তাদের আর দেখা যায়নি। হাসপাতালের পাশের কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হাসপাতালের এমনচিত্র প্রতিদিনেরই।


মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. পার্থ সারথি দত্ত কাননগো বলেন, হাসপাতাল দালালমুক্ত করতে তাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে। কয়েকদিন আগেও এক দালালকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন।

হাসপাতালের আয়াদের রোগী নিয়ে ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে যাওয়ার বিষয়ে তত্ত্বাবধায়ক বলেন, অভিযোগ পেলে সঙ্গে সঙ্গে তাদের হাসপাতাল থেকে বাদ দেওয়া হবে।