শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ



বড়লেখায় প্রয়াত নির্মাণ শ্রমিক নেতার পরিবারকে অটোরিকশা ও সেলাই মেশিন প্রদান
নিজস্ব প্রতিবেদক

নিজস্ব প্রতিবেদক



বিজ্ঞাপন

মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রয়াত নির্মাণ শ্রমিক প্রয়াত হারুনুর রশিদের অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে নির্মাণ শ্রমিক বড়লেখা উপজেলা শাখা। সোমবার (১৭ আগস্ট) দুপুরে নির্মাণ শ্রমিক বড়লেখা শাখার পক্ষ থেকে প্রয়াত হারুনুর রশিদের পরিবারকে ব্যাটারিচালিত একটি অটোরিকশা ও সেলাই মেশিন দেওয়া হয়েছে।


বড়লেখা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপজেলা চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ অটোরিকশার চাবি ও সেলাই মেশিন তুলে দেন। অটোরিকশাটির মূল্য ১ লাখ ৫ হাজার টাকা।

এ উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন নির্মাণ শ্রমিক বড়লেখা উপজেলা শাখা সভাপতি জাইজ উদ্দিন। তরুণ সমাজকর্মী আমজাদ হোসেন পাপলুর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন নির্মাণ শ্রমিক দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়ন শাখা সাধারণ সম্পাদক আহাদুর রহমান।

অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন নির্মাণ শ্রমিক উপজেলা শাখা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান, দপ্তর সম্পাদক মিলন দে, খলাগাঁও উপ শাখা সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন, দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়ান শাখা সাধারণ সম্পাদক হবিবুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ বলেন, ‘নির্মাণ শ্রমিকরা নিজেদের একজন প্রয়াত শ্রমিকের অসহায় পরিবারের জন্য যে উদ্যোগ নিয়েছেন এটা বিরল দৃষ্টান্ত। এই উদ্যোগ প্রয়াত এই শ্রমিকের অসহায় শিশুদের মুখে হাসি ফোটাবে। এটা সমাজে অন্যদের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। উপজেলা পরিষদ থেকে প্রয়াত শ্রমিকের স্ত্রীকে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় এসে প্রতি মাসে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা করব।’


নির্মাণ শ্রমিক উপজেলা শাখা সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ বলেন, ‘দীর্ঘদিন হারুনুর রশিদ অসুস্থ থেকে মারা যান। তার স্ত্রী ৮ সন্তান নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েন। প্রথম দু’মাস সংগঠনের দুই ইউনিয়ন শাখা থেকে সহযোগিতা দিই আমরা। কিন্তু পরিবারটির দীর্ঘদিনের জন্য সহায়তা দরকার। ছেলে-মেয়েগুলো ছোট। শুধু বড় মেয়েটির বয়স ১৪ বছর। অসহায় বাচ্চগুলোর দিকে তাকলে কষ্ট লাগে। এ অবস্থায় সকলের আর্থিক উদ্যোগ ও উপদেষ্টাদের সহযোগিতায় একটি অটোরিকশা কিনে দিয়েছি। শহরের মাহমুদা ট্রেডার্সের মালিক আলিম উদ্দিন একটি সেলাই মেশিন দিয়েছেন। আমরা কোনোমতে চলি। নিজেদের আয় থেকে বাঁচিয়ে অসহায় সহকর্মী এক শ্রমিক পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছি। এটা আমাদের সবার ভালো লাগছে। পরিবারটি এখন স্বচ্ছলভাবে চলতে পারবে।’