সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ


 




বড়লেখায় নির্মাণের ৪ দিনের মাথায় খসে পড়লো শহীদ মিনারের পলেস্তরা!

নিজস্ব প্রতিবেদক





মৌলভীবাজারের বড়লেখা পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্রের বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ সম্পন্নের ৪ দিনের মাথায় সিঁড়ির পলেস্তরা খসে পড়ছে। জেলা পরিষদের অর্থায়নে এটি নির্মিত হয়েছে। শহীদ মিনারেরমত একটি জাতীয় স্থাপনার নির্মাণ কাজ অত্যন্ত নিম্নমানের করায় সংশ্লিষ্ট মহলে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে।


জানা গেছে, পৌর শহরের বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার না থাকায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিনের দাবীর প্রেক্ষিতে মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান এই স্কুলে শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য ৩ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন।

নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পায় তাহমিদ এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। গত ১ মে নির্মাণ শুরু করে নির্মাণ কাজ সম্পন্নের পর গত ১৫ জুলাই শহীদ মিনারের উদ্বোধনী ফলক স্থাপন করা হয়।

শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শহীদ মিনারের সিঁড়ির নেট ফিনিসিংসহ পলেস্তরা উঠে যাচ্ছে।


স্কুলের প্রধান শিক্ষক দীপক রঞ্জন নন্দী জানান, কাজের শুরুতে ঠিকাদারের মিস্ত্রীরা নিম্নমানের ইট ব্যবহার করেছে। বালুর সাথে সিমেন্টের মিশ্রন সঠিক না হওয়ায় কাজ শেষ করার ৪ দিনের মাথায় সিঁড়ি ভেঙ্গে যাচ্ছে। কাজ চলাকালিন আপত্তি করা স্বত্ত্বেও ঠিকাদার খারাপভাবে কাজ চালিয়ে গেছেন। কাজ শেষ করার পরও জানায়নি যে, কাজ শেষ হয়ে গেছে।

বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আনোয়ার উদ্দিন শনিবার (২০ জুলাই) বলেন, ‘জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমানের নিকট বড়লেখায় কেন্দ্রিয় শহীদ মিনার হিসেবে ব্যবহারের জন্য বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি শহীদ মিনারের দাবী জানানো হয়। সকলের সম্মানে তিনি দাবী পূরণ করলেও নির্মাণ কাজে ঠিকাদারের অনিয়মের কারণে তা হতাশায় পরিণত হয়েছে। ঠিকাদার বিদ্যালয়ের কারো সাথে যোগাযোগ না করেই ৪ দিন আগে ত্রুটিপূর্ণ শহীদ মিনারে উদ্বোধনী ফলক লাগিয়ে দিয়েছেন।’


ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাহমিদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী খছরুজ্জামান শনিবার (২০ জুলাই) বলেন, ‘নিচের সিঁড়িগুলো আগে করা যায়নি, মেঘের পানি জমে যাওয়ার কারণে। মিস্ত্রি শুক্রবার নিচের সিঁড়িগুলো কাজ করে। সাথে সাথে বৃষ্টি আসায় পলিথিন দিয়ে ঢাকতে পারেনি। এই জন্য সমস্যা হয়েছে। আর কিছু নয়। শহীদ মিনার ধীরে ধীরে কাজ করতে হয়। যেটুকু খসে পড়তেছে সবগুলো ঠিক করে দেওয়া হবে। বৃষ্টি না হলে রবিবার কাজ করা হবে।’

জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী সাইদুর রহমান শনিবার (২০ জুলাই) বলেন, ‘শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজে অনিয়ম করে থাকলে ঠিকাদারকে অবশ্যই তা সংশোধন করতে হবে।’



error: Content is protected !!