বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ




বড়লেখায় স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক





মৌলভীবাজারের বড়লেখায় পান্না বেগম (৩০) নামে এক গৃহবধুকে তার স্বামী ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ ওঠেছে। সোমবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার নিজবাহাদুরপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর নিহতের স্বামী মতছিন আলী পলাতক রয়েছেন।


থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১০ বছর আগে বড়লেখা উপজেলার তালিমপুর ইউনিয়নের কলারতলিপার গ্রামের মাখই মিয়ার ছেলে মতছিন আলীর সাথে বিয়ানীবাজার উপজেলার পাড়িয়াবহর গ্রামের ইসমাইল আলীর মেয়ে পান্না বেগমের বিয়ে হয়। পরিবারের তাদের দুটি সন্তান রয়েছে। প্রায় ৪ মাস আগে স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে দুই বছরের শিশু সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ি পাড়িয়াবহরে চলে যান পান্না বেগম। ওই সময় বড় মেয়ে সুহানাকে (৭) শশুর বাড়ির লোকজন রেখে দেয়।

এদিকে সম্প্রতি সুহানা নিজবাহাদুরপুর ইউনিয়নের ইটাউরী গ্রামে তার ফুফুর বাড়িতে বেড়াতে আসে। এখানে এসে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। মেয়ে সুহানার অসুস্থতার খবর পেয়ে পেয়ে পান্না বেগম তাকে দেখতে ইটাউরীতে আসেন। সোমবার সকাল ৭টার দিকে সুহানাকে স্থানীয় এক হুজুরের কাছে নিয়ে যাওয়ার সময় দৌলতপুর এলাকার একটি মসজিদের পাশের রাস্তায় পান্নার স্বামী মতছিন তাকে বাধা দেন। একপর্যায়ে মতছিন পান্নাকে তার সাথে থাকা ছুরি দিয়ে উপর্যপুরি আঘাত করেন। এরপর মতছিন পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়রা পান্না বেগমকে উদ্ধার করে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে পান্নার মৃত্যু হয়।


বিষয়টি নিশ্চিত করে বড়লেখা থানার এসআই সুব্রত কুমার দাস বলেন, পারিবারিক কলহের কারণে পান্না বেগমকে তার স্বামী মতছিন ছুরিঘাত করে হত্যা করেছেন বলে আমরা প্রাথমিকভাবে জেনেছি। নিহতের মরদেহ বিয়ানীবাজার হাসপাতালে রয়েছে। পুলিশ লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেছে। পান্নার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনার পর নিহতের স্বামী পলাতক রয়েছেন। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।




error: Content is protected !!