বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



শেকড়ের টানে বড়লেখা ঘুরে গেলেন ভাসমান ট্রেন আবিস্কারক পদার্থ বিজ্ঞানী ড. আতাউল করিম

নিজস্ব প্রতিবেদক






শেকড়ের টানে মৌলভীবাজারের বড়লেখা ঘুরে গেলেন ভাসমান ট্রেন আবিস্কারক বিশ্বসেরা পদার্থ বিজ্ঞানী ড. আতাউল করিম। দেশে এসে বুধবার সকালে জন্মস্থান বড়লেখা পৌরশহরের বারইগ্রামে ছুটে আসেন তিনি। বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এদিন দুপুরে বড়লেখা পৌরশহরের আরকে লাইসিয়াম স্কুল পরিদর্শন এবং শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনময় করেন আতাউল। পরে বিকেলে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে বড়লেখা ত্যাগ করেন।

আতাউল করিমের চাচাতো ভাই আরকে লাইসিয়াম স্কুলের শিক্ষক তাজুল ইসলাম বৃহস্পতিবার বলেন, ভাই (আতাউল করিম) আড়াই বছর দেশে এসেছেন। তিনি আজ বৃহস্পতিবার বাড়িতে আসার কথা ছিল। কিন্তু নাড়ির টানে গতকাল বুধবারই বাড়িতে আসেন। বাড়িতে আসার পর আরকে লাইসিয়াম স্কুলের শিক্ষকদের অনুরোধে স্কুল পরিদর্শন করেন এবং শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। বুধবার বিকেলে বাড়ি থেকে আবার ঢাকায় ফিরে যান। সময় সল্পতার কারণে তিনি সবার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেননি।

প্রসঙ্গত, ড. আতাউল করিম ১৯৫৩ সালের ৪ মে বড়লেখার মিশন হাউসে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা মোহাম্মদ আবদুস শুকুর পেশায় ডাক্তার ছিলেন। তাঁর শিক্ষাজীবন শুরু হয় বড়লেখা সদরের ষাটমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর বড়লেখার ঐতিহ্যবাহী পিসি হাইস্কুলে পড়ালেখা করেন। পরবর্তী সময়ে ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ থেকে ১৯৬৯ সালে মাধ্যমিক পরীক্ষায় চট্টগ্রাম বোর্ডে প্রথম শ্রেণীতে ৪র্থ স্থান অধিকার করেন। ১৯৭২ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় সিলেট এম সি কলেজ থেকে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৬ সালে পদার্থবিজ্ঞানে বিএসসি (অনার্স) ডিগ্রি লাভের পর উচ্চ শিক্ষা লাভের উদ্দেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গমন করেন। পদার্থবিজ্ঞানে মাস্টার অব সায়েন্স, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মাস্টার অব সায়েন্স এবং পিএইচডি করেন ইউনিভার্সিটি অব আলাবামা থেকে যথাক্রমে ১৯৭৮, ১৯৭৯ এবং ১৯৮১ সালে।

পড়ালেখা শেষ করে তিনি আরকানস বিশ্ববিদ্যালয়ে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে। ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দে উইচিটা স্টেট ইউনিভার্সিটিত্র তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত সেখানে কর্মরত ছিলেন। ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি ইউনিভার্সিটি অফ ডেইটনে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। ১৯৮৮ সালে তিনি সহযোগী অধ্যাপক এবং ১৯৯৩ সালে অধ্যাপক পদে উন্নীত হন। ডেইটন বিশ্ববিদ্যালয়েই তিনি ইলেক্ট্রো-অপটিক্স প্রোগ্রামের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ১৯৯১ থেকে ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি সেখানে তড়িৎ ও কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৮৮ খ্রিস্টাব্দে ওহিও’র রাইট প্যাটার্সন বিমান ঘাঁটিতে এভিওনিক্স পরিচালক হিসেবে যোগ দেন এবং ১৯৯০ খ্রিস্টাব্দে পর্যন্ত সেখানে কর্মরত ছিলেন। ১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দে তিনি টেনেসী বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ ও কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন এবং ২০০০ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন।

২০০০ সালে তিনি সিটি ইউনিভার্সিটি অব নিউ ইয়র্কে তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলের ডীন হিসেবেও কর্মরত ছিলেন। ২০০৪ সালে তিনি নরফোকে অবস্থিত ওল্ড ডোমিনিয়ন ইউনিভার্সিটির তড়িৎ ও কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। আতাউল করিম ১৯৮৭ সাল থেকে বিভিন্ন রকম গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু ম্যাগলেভ ট্রেনের প্যাটার্ন আবিষ্কার তাকে সারা বিশ্বে প্রসিদ্ধ করে তোলে। আতাউল করিম ভার্জিনিয়ার নরফোকের ওল্ড ডোমিনিয়ন ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতাকালে ম্যাগলেভ ট্রেন নিয়ে গবেষণা করেছিলেন। ওল্ড ডোমিনিয়ন ইউনিভার্সিটির গবেষকেরা ৭ বছর ধরে এ ধরনের একটি ট্রেন তৈরির চেষ্টা করছিলেন, তবে সাফল্যের দেখা পাননি। ড. আতাউল করিম ২০০৪ সালে এই গবেষণা প্রকল্পের সফলতা অর্জন করেন। এরপর মাত্র দেড় বছরে ট্রেনটির প্রযুক্তি নির্মাণে সক্ষম হন এবং গবেষণায় পরীক্ষামূলকভাবে সফল হন। বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস ডার্টমাউথের প্রোভোস্ট এবং এক্সিকিউটিভ ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে কর্মরত। পারিবারিক জীবনে তিনি এক পুত্র ও দুই কন্যার জনক।







error: Content is protected !!